1. admin@dailybhorerbangladesh.com : admin : Shah Alam
শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:০১ অপরাহ্ন

সিংঙ্গাইরে বিশ্ব কন‍্যাশিশু দিবস পালিত

মাহবুবুল আলম রাসেল
  • আপডেট টাইম মঙ্গলবার, ১২ অক্টোবর, ২০২১
  • ১৪৯ ভিউ টাইম

বিশ্ব কণ্যাশিশু দিবসে বাল্য বিবাহ নিরোধের ডাক

মো: মাহবুবুল আলম রাসেল,মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি:

আর্ন্তজাতিক কণ্যাশিশু দিবস। প্রতিবছর ১১ই অক্টোবর আর্ন্তজার্তিক কণ্যাশিশু দিবস হিসেবে পালন করা হয়ে থাকে।

এই দিবসকে মেযেদের দিনও বলা হয়। ২০১২ সালের ১১ ই অক্টোবর প্রথম এই দিবস পালন করা হয়েছিল। লিঙ্গ বৈষম্য দূর করা এই দিবসের অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য ।

“আমরা কণ্যাশিশু প্রযুক্তিতে সমৃদ্ধ হবো, ডিজিটাল বাংলাদেশ  গড়বো” ডিজিটাল প্রজন্ম, আমাদের প্রজন্ম ” এই প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে সিংগাইর উপজেলার বিনোদপুর গ্রামে কনকলতা  কিশোরী সংগঠনের  উদ্যোগে এবং বারসিক এর সহযোগিতায় গতকাল ১১ ই অক্টোবর পালিত হলো আন্তর্জাতিক কণ্যাশিশু দিবস ২০২১।

আন্তর্জাতিক কণ্যাশিশু দিবসে কিশোরীদের খেলাধুলা , আলোচনা সভা, মানবন্ধন ও সর্বোপুরি পুরস্কার বিতরন কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হয়েছে। কিশোরীরা স্বতর্স্ফুতভাবে ( চেয়ার খেলা, বল ছোড়া) খেলায় অংশগ্রহন করেন। উক্ত অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন কনকলতা কিশোরী সংগঠনের সভাপতি তানিয়া আক্তার, কর্মসূচির ধারনাপত্র পাঠ করেন সংগঠনের সাধারন সম্পাদক রিমা আফরিন নুপুর, সঞ্চালয়কের ভূমিকা পালন করেন বারসিক প্রকল্প সহায়ক রিনা আক্তার । উক্ত সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন বারসিক’র প্রোগ্রাম অফিসার মো: নজরুল ইসলাম, অধ্যাপক মনোয়ার হোসেন , সমাজসেবক আমিনুল ইসলাম, বারসিক’র আঞ্চলিক সমন্বয়কারী বিমল চন্দ্র রায়।

উক্ত আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন বারসিক’র প্রোগ্রাম অফিসার মো: নজরুল ইসলাম  এবং কিশোরীদের উদ্দেশ্যে  বলেন আমাদের কিশোরীদের প্রযুক্তিতে সমৃদ্ধ হতে হবে, যাতে করে তারা ভবিষ্যতের কর্ণধার এবং নারীবান্ধব সমাজ প্রতিষ্ঠায় অগ্রনী ভূ’মিকা রাখতে পারে।

আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন আমিনুল ইসলাম । তিনি কিশোরীদের উদ্দেশে ্্্্্উদাহরনস্বরুপ বলেন তার স্ত্রী বর্তমানে র‌্যাবের একজন কর্মকর্তা । তার যদি অল্প বয়সে বিয়ে হতো তাহলে  সে কি এতো দূর  যেতে পারতো। বারসিক’র আঞ্চলিক সমন্বয়কারী বিমল চন্দ্র রায় বলেন আমাদের কণ্যাদের জড়তা কাটিয়ে নিজের প্রতিভাকে বিকশিত করতে হবে, বেশি বেশি বই পড়ার অভ্যাশ বাড়াতে  হবে, সেই সাথে দক্ষ হয়ে উঠতে হবে সবাইকে। সভায় অধ্যাপক মনোয়ার হোসেন জেন্ডার বৈষম্য নিয়ে বলেন “ কণ্যাশিশুদের জন্য যদি আলাদা  একটা দিবস পালিত হয়, ছেলেশিশুদের জন্য নয় কেন? এই বৈষম্য আমার কাছে ভীষন বেদনাদায়ক ।এই বৈষম্য দূর করার জন্য আমাদের নারীদের  অনেক দুর যেতে হবে শিক্ষা  দিক্ষায়। সকলের কথায় কিশোরীরা অনেক অনুপ্রানিত হয় এবং সকলে এক সাথে প্রত্যয় করনে তারা বাল্য বিয়ে করবে না , প্রযুক্তিতে সমৃদ্ধ হবে। সেই সাথে অভিবাবকরাও বক্তব্যে অনুপ্রানিত হয়ে তাদের কন্যাদের বাল্য বিয়ে না দেয়ার প্রত্যয় করেন। তারা তাদের কন্যাদের পড়াশোনার দিকে  আরও বেশি মনোযোগি ও সচেতন হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই কেটাগরির আরো খবোর

Categories