1. admin@dailybhorerbangladesh.com : admin : Shah Alam
শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৪৩ অপরাহ্ন

দৌলতপুরে কন কনে শীতে নিম্ন আয়ের মানুষের দূর্ভোগ চরমে শীত থেকে বাঁচতে আগুন জালিয়ে বাঁচার চেষ্টা

Reporter Name
  • আপডেট টাইম বুধবার, ৪ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ৭৪ ভিউ টাইম

মো:শাহ আলম,দৌলতপুর থেকে:

সারাদেশে চলছে শৈত্যপ্রবাহ গতদিনের
ঘন কুয়াশা, কনকনে ঠাণ্ডার পাশাপাশি হিমেল হাওয়ার কারণে মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলায় বিভিন্ন স্থানে জনজীবন স্থবির হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে খেটেখাওয়া মানুষের দুর্ভোগ এলাকায় হিমেল হাওয়ার কারণে কনকনে ঠাণ্ডা অনুভূত হচ্ছে। এ ধরনের আবহাওয়া আরও কয়েকদিন বিরাজ করবে বলে তিনি জানান আবহাওয়া অফিস ।সারাদিন সূর্যের দেখা মিলেনি। চলছে শৈত্যপ্রবাহ। বিশেষ করে চরাঞ্চল ও প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষের দুর্ভোগ চরমে উঠেছে। দিনের বেশিরভাগ সময় আকাশ কুয়াশাচ্ছন্ন ছিল। সেই সঙ্গে হিমেল হাওয়ায় ছিল কনকনে শীত। এদিকে দৌলতপুর থানা স্বাস্থ‍্য কমপ্লেক্সের আউটডরে ঠাণ্ডাজনিত শ্বাসকষ্ট, জ্বর-কাশিসহ নানা রোগের কারণে শিশু ও বৃদ্ধরা আসছে বেশি। একই অবস্থা ক্লিনিকগুলোতেও।
ঘন কুয়াশায় দিনভর আকাশ ঢেকে থাকার কারণে সূর্যের দেখা মিলছে না। তীব্র শীত ও কুয়াশার কারণে সর্দি-কাশি ও হাঁপানি রোগের প্রকোপ বাড়ছে। প্রচণ্ড ঠাণ্ডার কারণে হাওরাঞ্চলের কৃষকরা বোরো জমিতে কাজ করতে পারছেন না। ফলে বোরো চাষাবাদ ব্যাহত হচ্ছে। তাছাড়া গরিব মানুষ শীতবস্ত্রের অভাবে নিদারুণ কষ্টের মধ্যে পড়েছেন।
এছাড়া গতকাল ভোর থেকে সকাল ১১টা পযর্ন্ত গুঁড়ি গুঁড়ি শিশির ঝরছে আকাশ থেকে। অভাবী পরিবারগুলো শীতবস্ত্রের অভাবে খড়কুটো পুড়িয়ে রাত কাটাচ্ছে। প্রচণ্ড শীতের কারণে কৃষকরা তাদের গবাদিপশু নিয়েও বিপাকে পড়েছেন।
সূর্যের দেখা মেলেনি কাল। ঈশ্বরদী আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, এদিকে শৈত্যপ্রবাহের কারণে শীতজনিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ ও গবাদিপশু।
জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। শীতের কাঁপুনিতে মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছে। ঠাণ্ডার কারণে ডায়রিয়ার প্রকোপ বেড়েছে। গরম কাপড়ের দোকানে নিম্ন আয়ের মানুষের ভিড় বেড়েছে। শৈত্যপ্রবাহের কারণে মানুষ অনেকটা গৃহবন্দি হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে পদ্মা নদী তীরবর্তী, নদীর চরাঞ্চলের বস্ত্রহীন এবং ভাসমান মানুষের অবস্থা খুবই শোচনীয়।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে- রাস্তায় বহু মানুষ মানবেতর জীবন যাপন করতে দেখা গেছে।
এবিষয়ে অটো চালক মনোয়ার হোসেন বলেন এই শীতে গাড়ী চালাতে পারিছিনা হাত পা ঠান্ডা হয়ে যায়।এছাড়া শীতের কারনে কাষ্টমার নেই।তাই আমরা মানবের জীবন যাপন করছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই কেটাগরির আরো খবোর

Categories